হোম পেজ

বাংলাদেশে খাঁটি বাঙালি নেতৃত্ব চায় গণমানুষ

আল্লাহ্ বিশ্বাসীদেরকে রক্ষা করেন। তিনি কোনো বিশ্বাসঘাতক অকৃতজ্ঞকে ভালোবাসেন না। আল কুরআন (২২ ঃ ৩৮)। আমি মুসলমান, এই কথার চেয়ে উত্তম কথা আর কি? বাংলাদেশে ৯০ ভাগ বাঙালিই মুসলমান। তাদেরকে আবার ধর্মান্ধ রাজনৈতিক ইসলামপন্থীরা কোন মুসলমান বানাতে চায়? সংলাপ ॥ দেশের মানুষ সবচেয়ে বেশি যা হারাচ্ছেন, তা হল বাঙালিত্ব আর রাজনীতির আভিজাত্য। বাঙালি জাতির মধ্যে সব শাসনপ্রণালীর মধ্যে গণতন্ত্রই যে সর্বোত্তম হয়ে উঠতে পারল, তার একমাত্র কারণ - এই শাসনব্যবস্থা অভিজাত। বিদ্বেষহীন-রুচিবোধ, মূল্যবোধ, শালীনতা, মনুষ্যত্ব, ঔদার্য হাত ধরাধরি করে এখানে বিরাজ করে। গণতন্ত্রে মতভেদ আছে, কিন্তু মনোমালিন্য নেই। বিতর্ক আছে, বিবাদ নেই। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব আছে, কিন্তু মানুষের সমাজে এর কোনও প্রতিফলন নেই, কোনও অন্তর্দ্বন্দ্বও নেই। তাই বর্তমানের প্রেক্ষিতে যখন দেশবাসী তাকায় তখন বিস্মিত না হয়ে পারে না। [বিস্তারিত...]

সময়ের সাফ কথা.... তৈল মালিশ!

অ্যাডভোকেট এম.মাফতুন আহম্মেদ ॥ প্রবন্ধটি লিখতে যেয়ে একটু পেছনে ফিরে যেতে হয়। স্মরণ করিয়ে দেয় হর প্রসাদ শাস্ত্রীর কথা। আজ থেকে শত বছর পূর্বে ‘তৈল’ রচনাটি তিনি লিখেছিলেন। এ রচনাটিতে সমসাময়িক সমাজ ব্যবস্থার অধ:পতিত চিত্রটি চমৎকারভাবে ফুটিয়ে তুলে ছিলেন। শাস্ত্রী মহাশয় তার রচনাটিতে উল্লেখ করেন যে, ‘বাস্তবিক তৈল সর্ব শক্তিমান, যা বলের অসাধ্য, যা বিদ্যায় অসাধ্য, যা কৌশলের অসাধ্য তা কেবল তৈল দ্বারা সিদ্ধ হতে পারে’। তিনি আরও লেখেন-‘যে তৈল দিতে পারবে তার বিদ্যা না থাকলেও প্রফেসর হতে পারে। আহম্মক হলেও ম্যাজিস্ট্রেট হতে পারে, সাহস না থাকলেও সেনাপতি হতে পারে। দুর্লভ রাম হয়েও উড়িষ্যার গভর্ণর হতে পারে’। ব্রিটিশ ভারতে ১৮৭৭ সালে হর প্রসাদ শাস্ত্রীর জন্ম হয়েছিল। তিনি আজ পরপারে। ১৯৩১ সালে তার মৃত্যু হয়েছে। তিনি আজ বেঁচে থাকলে [বিস্তারিত...]

উত্তরণের পথ ক্ষমতা নয় মমতাবোধের জাগরণ

সংলাপ ॥ আমাদের দেশে রাজনীতিকরা ভোটের আগে জনগণের কাছে আবেদন জানান যেন তাকে ভোট দিয়ে দেশ ও দশের সেবা করার সুযোগ দেয়া হয়। যে রাজনীতিক ভোটে প্রার্থী হয়েছেন তার আসল উদ্দেশ্যটা কি? সেটা কি দেশ ও দশের সেবা না-কি ক্ষমতা? দেশ ও দশের সেবা করার জন্য কি ক্ষমতা অপরিহার্য? ক্ষমতায় না গেলে কি মানুষের সেবা করা যায় না? ক্ষমতা কি মানুষকে সেবাপরায়ণ করে? ক্ষমতার সাথে সেবার সম্পর্ক কি? ‘ক্ষম তাড়িত যাহাতে’ সে ক্ষমতাবান। যার ক্ষমতা আছে সে ইচ্ছে করলে ক্ষমা করতে পারে আবার ইচ্ছে করলে শাস্তিও দিতে পারে। ক্ষমা করার যোগ্যতা যার নেই সে অক্ষম। অন্যদিকে, আমি থেকে ‘সে’-কে যে গুরুত্বপূর্ণ মনে করে তিনি সেবক। সুতরাং সেবার সাথে ক্ষমতার কোন সম্পর্ক নাই। সে = অস্তিত্ব দিশাগ্রস্ত থাকে [বিস্তারিত...]

স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করার ইতিবাচক চিন্তা!

শেখ উল্লাস ॥ রাজধানীতে জনসংখ্যার অত্যাধিক চাপ এবং এর বিপরীতে গ্রাম-মফস্বলের প্রতি সমাজের অগ্রসর ও সুবিধাভোগী মানুষদের অনাগ্রহের একটি বড় কারণ স্থানীয় সরকার ব্যবস্থার প্রতি সরকার ও রাষ্ট্রের সুনজরের অভাব। অবসরপ্রাপ্ত বড় চাকুরিজীবী, আমলা, শিক্ষকসহ স্বাধীন দেশের সুবিধাভোগী কেউই এখন আর স্থায়ীভাবে বসবাসের জন্য গ্রাম বা মফস্বল শহরকে বেছে নিতে চায় না। অনেকে আবার নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে ছেলেমেয়েদেরকে, এমনকি নিজেদেরকেও ইউরোপ-আমেরিকা-কানাডা-অষ্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মতো বিদেশে স্থায়ীভাবে বসবাসের সুযোগ করে নিতে সদা ব্যস্ত। তাদের যুক্তি এদেশের গ্রাম-মফস্বলে থাকার পরিবেশ নেই। কিন্তু গ্রাম-মফস্বলের পরিবেশটাকে ভালো রাখার জন্য দায়িত্বও যে তাদের ছিল এ কথাও তারা স্মরণে রাখেন কদাচিৎ।  কারণ, এই দেশ এবং এই দেশের গ্রাম-মফস্বলে জন্ম নিয়ে এদেশের আলো-বাতাসে বড় হয়ে, এদেশের স্বাধীনতার সুফল ভোগ করেই তারা এই পর্যায়ে আসতে পেরেছেন। গ্রামই [বিস্তারিত...]

দায়েশ ধ্বংসের পথে....

দায়েশ ধ্বংসের পথে....  সংলাপ ॥ ইরাকের বিমান বাহিনী উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশের একটি তেলবহর ধ্বংস করে দিয়েছে। ইরাকের উত্তরাঞ্চলীয় নেইনাভা প্রদেশে এ তেলবহর ধ্বংস করা হয়েছে। ইরাকি বিমান বাহিনীর এ হামলাকে সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর তেল পাচার বাণিজ্যের ওপর বড় ধরনের আঘাত বলে মনে করা হচ্ছে। বহরে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলবাহী ২০টি ট্যাংকার ছিল বলে জানিয়েছে আরবি ভাষার নিউজ ওয়েবসাইট আস-গুমারিয়া। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক নিরাপত্তা সূত্রের বরাত দিয়ে এ খবর দেয়া হয়েছে। ইরাকি বিমান হামলায় গোটা বহর পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে এবং বহরের গাড়িগুলোতে আগুন ধরে যায়। হামলায় অন্তত আট সন্ত্রাসী নিহত এবং সমসংখ্যক ব্যক্তি আহত হয়েছে। গত সপ্তাহের সোমবার আইএইচএস কনফ্লিক্ট মনিটর বলেছে, তেলপাচার থেকে ৪৩ শতাংশ অর্থ আয় করে দায়েশ। বাকি অর্থ নির্যাতনমূলক কর, সম্পত্তি জবরদখল, মাদক পাচার, পণবন্দি আটকের মাধ্যমে আয় করে [বিস্তারিত...]

অবশেষে রেহাই পেলেন জ্যোতিবাবু

অবশেষে রেহাই পেলেন জ্যোতিবাবু সংলাপ ॥ মৃত্যুর পরেও তাঁর বিরুদ্ধে মামলা ঝুলছিল। আদালত অবমাননার মামলা। তিনি রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসু। অবশেষে গত শুক্রবার পাকাপাকিভাবে সেই মামলা থেকে মুক্তি পেলেন তিনি। কলকাতা হাইকোর্ট মামলাটির নিষ্পত্তি করে বলেছে, অভিযুক্তের বিরুদ্ধে যে আদালত অবমাননার রুল ঝুলছিল, সময়ের সঙ্গে তাঁর প্রাসঙ্গিকতা হারিয়েছে। তাই বকেয়া রেখে দেয়া অর্থহীন। ১৯৯৩ সালের ১১ জানুয়ারি বিভিন্ন সংবাদপত্রে সংবাদটি বেরিয়েছিল। তারই মধ্যে একটি কলকাতা থেকে প্রকাশিত ইংরেজি সংবাদপত্র হাতে নিয়ে এক আইনজীবী সেদিন সটান হাজির হন বিচারপতি পদা খাস্তগিরের এজলাসে। প্রথম পাতায় প্রকাশিত সংবাদটির দিকে তিনি বিচারপতির দৃষ্টি আকর্ষণ করে দাবি করেন, কেন জ্যোতিবাবুর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার রুল জারি করা হবে না? উল্লেখ্য, ওই সংবাদপত্রে প্রকাশিত সেই সংবাদ অনুযায়ী, ১০ জানুয়ারি সল্টলেকে আয়োজিত ‘ক্যালকাটা ফেয়ার’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জ্যোতিবাবু বলেছিলেন, ‘দুর্নীতি [বিস্তারিত...]

সবুজ সংকেতে জঙ্গিগোষ্ঠী সৃষ্টি করেছে সৌদি আরব!

সবুজ সংকেতে জঙ্গিগোষ্ঠী  সৃষ্টি করেছে সৌদি আরব! সংলাপ ॥ মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র সবুজ সংকেতে সৌদি আরবের পৃষ্ঠপোষকতায় গড়ে ওঠা উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আইএসআইএল বা দায়েশ আবারো আমেরিকাসহ পাশ্চাত্যের গণমাধ্যমগুলোর প্রধান খবর হয়ে এসেছে। ব্রিটেনের দৈনিক ফিনান্সিয়াল টাইমস মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির উদ্ধৃতি দিয়ে লিখেছে, সৌদি আরব স্বীকার করেছে তাদের পৃষ্ঠপোষকতায় জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসআইএল গড়ে উঠেছে এবং এর পেছনে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র সমর্থন ছিল। এ খবর প্রকাশের পর মার্কিন গণমাধ্যমগুলোতেও এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা পর্যালোচনা শুরু হয়েছে। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরির সঙ্গে সাক্ষাতে সৌদি কর্মকর্তারা বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন হস্তক্ষেপের কারণে রিয়াদ প্রথমে আল-কায়দা এবং এরপর দায়েশকে গড়ে তুলেছে। তারা এও স্বীকার করেছে, ২০০৩ সালে ইরাকে মার্কিন হামলার ফলে আঞ্চলিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি পুরোপুরি ইরানের অনুকূলে চলে গেছে এবং এ ধারা ঠেকানোর জন্য পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন [বিস্তারিত...]

চেতনায়.... পহেলা বৈশাখ

সংলাপ ॥ দুঃখজনক হলেও আজো সত্যি, জাতীয় অগ্রগতির ধারায় যখনই কোন ব্যক্তি বা চক্র কৌশলে চক্রান্তমূলক ভাবেই জাতীয় চেতনার মূলে আঘাত হেনেছে, তখনই তাকে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় স্থান দিয়ে সমর্থন করা হয়েছে। তাই জাতীয় চেতনার পরিপন্থী চক্র বার বার পেয়েছে রাজনৈতিক আশ্রয়। পহেলা বৈশাখে বাঙালির নববর্ষ উৎসব উদ্যাপনকে নিয়ে ধর্মব্যবসায়ী উগ্রবাদী শ্রেণীর চক্রান্ত দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। পাকিস্তান শাসনামলেও এই চক্রান্ত চলেছিল। ষাটের দশকে পাকিস্তানের সামরিক স্বৈরশাসক আইয়ুব শাহীর শত নির্যাতনের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে এদেশের বাঙালি চেতনায় উদ্বুদ্ধ ছাত্র-জনতা প্রতিষ্ঠিত করেছিল এ উৎসব পালনের অধিকার। সাম্প্রতিক ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি ঘটিয়ে যারা মনগড়া ধর্মের অপব্যাখ্যায় জাতীয় চেতনায় বিভাজন রেখা টানতে চান, তাদের স্মরণ রাখা জরুরি বাঙালি চেতনায় ঐক্যবদ্ধ সংগ্রামী মানুষের অটুট ঐক্য ও প্রতিরোধের কথা। বাংলা নববর্ষ বাঙালি জাতির উৎসব। এ উৎসব [বিস্তারিত...]

সময়ের সাফ কথা.... ভোট চলছে-ভোট হচ্ছে

সংলাপ ॥ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট চলছে-ভোট হচ্ছে। এই দেশে ভোট এল মানেই, নেতাদের গলা মিহি হল, ক্যাডারদের লেজ মোটা হল, মিটিংয়ে-মিছিলে ছোটা হল, কোটি টাকা লুট হল।  অবাধ্য নেতারা বাধ্য হল, কোটি টাকার শ্রাদ্ধ হল, মিডিয়াগুলোরও খাদ্য হল। ভোট এল তো হরেক রঙের পতাকা আর লিফলেট এল, হরেক সাইজের ডান্ডা এল, নিজ-নিজ কথা নিয়ে ভোটের যত পাণ্ডা এল। ভোট এল তো রাতারাতি দেশে জনদরদি রাজনীতিকরা এল। একটু একটু করে ভোটের জমিটি চষা হল, বড় বড় নেতাদের কিঞ্চিৎ দর্শন হল, প্রতিশ্রুতির বর্ষণ হল।  এইভাবে... ভোটের জমিটি চষা হয়ে আসছে, অঙ্ক-টঙ্ক কষা হচ্ছে বারবার, টিকিট না পেয়ে অনেকের গোঁসা হচ্ছে, কাঁচারা ডাঁসা হচ্ছে, দিনকতকের জন্য শহুরে রাজনীতিকরা গাড়ী চড়ে  গ্রামে এসে সব গ্রামীণ চাষা বন যাচ্ছে। নেতাদের মরা গাঙে [বিস্তারিত...]

প্রতিবাদের ভাষা বিনির্মাণে....

অ্যাডভোকেট এম.মাফতুন আহম্মেদ ॥ কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার কবিতায় লিখেছেন - ‘যদি কেউ কথা না কয়, ওরে ও অভাগা, যদি সবাই থাকে মুখ ফিরায়ে, সবাই করে ভয়, তবে পরাণ খুলে ও তুই মুখ ফুটে তোর মনের কথা একলা বল রে’। সবাই যদি বাংলার জমিন থেকে হারিয়ে যান, ভয়ে সন্ত্রস্ত্র হন, নির্বাক হয়ে যান, আতংকে প্রতিবাদের ভাষা হারিয়ে ফেলেন, একলা চলেন, একলা মনের কথা বলেন তাহলে জাতি হিসেবে আমাদের কী একদিন অস্তিত্ব সংকটে পড়তে হবে? কারণ শহীদ-গাজীদের দেশ প্রিয় বাংলাদেশ। আন্দোলন-সংগ্রামের দেশ বাংলাদেশ। প্রতিবাদের দেশ বাংলাদেশ। লাখো শহীদের রক্তে ভেজা লাল সবুজের পতাকায় আচ্ছাদিত বাংলাদেশ। ইতিহাস-ঐতিহ্যের দেশ বাংলাদেশ। এই উপমহাদেশের প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামের সূতিকাগার সবুজ-শ্যামল এই বাংলাদেশ। অগ্নি গর্ভ বাংলাদেশ। বাঙালিদের অতীত ইতিহাস রয়েছে। ঐতিহ্য রয়েছে। নিজস্ব সংস্কৃতি [বিস্তারিত...]

‘শিক্ষিত’রাই বেশি বেকার!

শেখ উল্লাস ॥ বাংলা ভাষার বিভিন্ন অভিধানে ‘শিক্ষিত’ শব্দটির অর্থ-শিক্ষাপ্রাপ্ত, শিষ্ট, ভদ্র, নিপুণ, কুশল, বিদ্বান, বিনীত, অভ্যস্ত  ইত্যাদি। সম্প্রতি বাংলাদেশ শ্রমশক্তি জরিপ ২০১৫ (জুলাই-সেপ্টেম্বর)-এর চিত্রে দেখানো হয়েছে, বাংলাদেশে শিক্ষিত মানুষের মধ্যেই বেকারত্বের হার বেশি। তারা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী কাজ পান না। অন্যদিকে, যারা কখনো স্কুলে যাননি, শিক্ষার সুযোগ পাননি; তাদের মধ্যেই বেকারত্বের হার সবচেয়ে কম। জরিপ-এ বলা হয়েছে, উচ্চ মাধ্যমিক পাস তরুণ-তরুণীদের মধ্যে বেকারত্বের হার সবেচেয়ে বেশি, ১১ দশমিক ৭৫ শতাংশ। উচ্চ মাধ্যমিক পাস করাদের মধ্যে ৭ লাখ ১৬ হাজার বেকার। উচ্চ শিক্ষিতদের মধ্যে ৫ দশমিক ৭০ শতাংশ বেকার। স্নাতক বা স্নাতকোত্তর ডিগ্রি নিয়ে ৯৪ হাজার লোক এখনো পছন্দ অনুযায়ী কাজ পায়নি। অন্যদিকে অশিক্ষিতদের মধ্যে বেকারত্বের হার সবচেয়ে কম, ২ দশমিক ১৪ শতাংশ। তাদের সংখ্যা ৪ লাখ ১৩ [বিস্তারিত...]

মার্কিন সংবাদ মাধ্যমকে বিশ্বাস করে না ওই দেশের বেশিরভাগ মানুষ

মার্কিন সংবাদ মাধ্যমকে বিশ্বাস করে না ওই দেশের বেশিরভাগ মানুষসংলাপ ॥ আমেরিকার বেশিরভাগ মানুষই দেশটির সংবাদ মাধ্যমকে বিশ্বাস করেন না। মার্কিন সংবাদ মাধ্যমগুলো পক্ষপাত-মূলক ও একপেশে আচরণ করে বলে তারা মনে করেন। এছাড়া যথার্থ এবং সঠিক সংবাদও তারা পরিবেশন করে না বলে মার্কিন বেশিরভাগ নাগরিক বিশ্বাস করেন। অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস-এনওআরসি সেন্টার ফর পাবলিক অ্যাফেয়ার্স রিসার্চ এবং আমেরিকান প্রেস ইন্সটিটিউটের মতামত জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। মার্কিন কংগ্রেসসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের প্রতি মার্কিন মানুষের যেমন আস্থা কম তেমনি মার্কিন সংবাদ শিল্পের প্রতি আস্থা প্রায় সে পর্যায়ে নেমে এসেছে বলে এ জরিপে দেখা গেছে। জরিপে অংশ নেয়া প্রতি ১০ জনের মধ্যে চারজনই বলেছেন, মার্কিন সংবাদ মাধ্যমের প্রতি আস্থা নষ্টের সুনির্দিষ্ট কারণ তাদের মনে রয়েছে। এ ক্ষেত্রে মার্কিন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর হয় সঠিক ছিল না আর না হয় একপেশে ছিল বলে জরিপে [বিস্তারিত...]

ওআইসি সম্মেলন সমাপ্ত পড়ে শোনানো হয়নি বিবৃত

ওআইসি সম্মেলন সমাপ্ত  পড়ে শোনানো হয়নি বিবৃত রাসেল ॥ ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা বা ওআইসি’র শীর্ষ সম্মেলন গত শুক্রবার একটি বিবৃতি প্রকাশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে। তবে সংগঠনটির কোনো কোনো সদস্য দেশের বিরোধিতার কারণে বিবৃতিটি পড়ে শোনানো হয়নি। সমাপনী অধিবেশনে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এর্দোগান। তিনি বলেছেন, ওআইসি ফিলিস্তিনিদের পাশে থাকবে এবং রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতা দেবে। তিনি দাবি করেন, এবারের সম্মেলন উন্নয়ন, শান্তি ও ন্যায়ের ব্যাপারে মুসলমানদেরকে আশাবাদী করে তুলেছে। ওআইসি জুলুমের বিরুদ্ধে এবং ন্যায়ের পক্ষে কাজ করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন তুর্কি প্রেসিডেন্ট। এ সম্মেলনের মাধ্যমে ওআইসি’র সভাপতির দায়িত্ব তিন বছরের জন্য তুরস্কের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। গত মেয়াদে মিশর ছিল এ সংস্থার সভাপতি। ন্যায়বিচার ও শান্তির জন্য ঐক্য আর সংহতি ছিল এবারের এই শীর্ষ সম্মেলনের শ্লোগান। মুসলিম বিশ্বে জনগণের স্বার্থ রক্ষা ও নিরাপত্তা [বিস্তারিত...]

ইকুয়েডরে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে জরুরি অবস্থা ঘোষণা

ইকুয়েডরে ৭.৮ মাত্রার ভূমিকম্পে  জরুরি অবস্থা ঘোষণা সংলাপ ॥ লাতিন আমেরিকার দেশ ইকুয়েডরে ৭.৮ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। স্থানীয় সময় রাত ১১টা ৫৮ মিনিটে এ ভূমিকম্প আঘাত হানলে অন্তত ৫০০ ব্যক্তি নিহত এবং ৩০০০ এর বেশি আহত হয়। দেশটির ছয় প্রদেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা এবং জাতীয় গার্ড বাহিনীকে তলব করা হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়তে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। এ ছাড়া, আফটার শক নামে পরিচিত ভূমিকম্প পরবর্তী আরো শক্তিশালী ভূকম্পনও আঘাত হানতে পারে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করা হয়েছে। রাজধানী কিয়োটো থেকে ১০০ মাইলের বেশি দূরে ভূমিকম্পের কেন্দ্র ছিল বলে জানিয়েছে মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ বা ইউএসজিএস। ভূমিকম্পের কারণে এক মিটার বা ৩.২ ফুট উচ্চতার সুনামি আঘাত হানতে পারে বলে সতর্কবার্তা দেয়া হলেও তার আশংকা অনেকটাই কমে গেছে। অবশ্য ভূমিকম্পের পর রাজধানীর অর্ধেক এলাকায় বিদ্যুৎ [বিস্তারিত...]

৯/১১ ঘটনাটির পুরো রহস্য উদ্ঘাটনের পথে....

৯/১১ ঘটনাটির পুরো রহস্য উদ্ঘাটনের পথে....সংলাপ ॥ ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বরে কথিত ‘ছিনতাই-করা বিমান নিয়ে’ মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় পেন্টাগন ও বিশ্ব-বাণিজ্য কেন্দ্রের টুইন টাওয়ারে হামলায় জড়িত ১৫ জন সৌদি ছিনতাইকারী ছিল মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ’র অনুচর। আর তারা ইসরাইল ও মার্কিন সরকারের স্বার্থে মধ্যপ্রাচ্যকে ধ্বংস এবং আমেরিকান সামরিক বাজেটকেও দ্বিগুণ করতে চেয়েছে ওই হামলার মাধ্যমে। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে এইসব মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট মার্কিন শিক্ষাবিদ ও গবেষক ডক্টর কেভিন ব্যারেট। মার্কিন সংসদের কয়েকজন সাবেক সদস্য ১১ সেপ্টেম্বরের হামলায় সৌদি আরবের সম্ভাব্য ভূমিকা তুলে ধরার লক্ষ্যে ওই হামলার বিষয়ে তৈরি করা তদন্ত-প্রতিবেদনের গোপন অংশ প্রকাশের দাবি জানানোর পর ব্যারেট এইসব মন্তব্য করলেন। ডক্টর ব্যারেট ২০০৩ সাল থেকে নয়-এগারোর ঘটনাগুলো নিয়ে গবেষণা করে আসছেন এবং তিনি ওই ঘটনা তদন্ত বিষয়ে একটি বৈজ্ঞানিক প্যানেলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। মার্কিন কংগ্রেসের ওই [বিস্তারিত...]

রাশিয়ার অত্যাধুনিক এস-৫০০

রাশিয়ার অত্যাধুনিক এস-৫০০ মমতাজ ॥ রাশিয়া অত্যাধুনিক এস-৫০০ প্রমিথিউস ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েনের পরিকল্পনা ঘোষণা করেছে। চলতি বছরেই এস-৫০০ মোতায়েন করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন রুশ অ্যারোস্পেস ফোর্সেস’এর ভাইস-কমান্ডার লে. জেনারেল ভিক্টর গুমেন্নি। তিনি বলেছেন, এস-৫০০ এর প্রথম মডেল খুব শিগিগিরই পাওয়া যাবে বলে মস্কো প্রত্যাশা করছে। খবরে আরো বলা হয়েছে, এরই মধ্যে রুশ প্রতিরক্ষা দফতর পাঁচটি এস-৫০০’এর জন্য নির্দেশ দিয়েছে। এ সব ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার চূড়ান্ত পরীক্ষা চলছে বলেও খবরে উল্লেখ করা হয়েছে। এদিকে, রুশ সামরিক-শিল্প কমিশনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ভিক্টর মুরাখোভস্কি বলেছেন, এস-৪০০’এর চেয়ে অনেক উন্নত হবে নতুন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। এ ব্যবস্থা দিয়ে একযোগে পৃথক ১০ লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানা যাবে। এ ব্যবস্থা থেকে প্রতি সেকেন্ডে সাত কিলোমিটার গতিতে ছুটে যাওয়া ক্ষেপণাস্ত্র লক্ষ্যে আঘাত হানবে। পরমাণু বোমাবাহী ক্ষেপণাস্ত্র [বিস্তারিত...]

খাজা মঈন উদ্দিন চিশতি’র দরগায় মোদির পক্ষে চাদর

খাজা মঈন উদ্দিন চিশতি’র দরগায়  মোদির পক্ষে চাদর সংলাপ ॥ ভারতীয় উপমহাদেশের বিখ্যাত সূফি সাধক হজরত খাজা মঈন উদ্দিন চিশতি (র.)র দরগাহে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির হয়ে চাদর চড়ালেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নাকভি। গত রোববার দুপুর পৌনে বারোটা নাগাদ নাখভি এবং তার অন্যান্য সাথীরা মখমলের চাদর এবং ফুল নিয়ে নিজাম গেটে পৌঁছান। মন্ত্রী এদিন ধানমন্ডি থেকে নিজাম গেট পর্যন্ত বিশেষ ঘেরাটোপের মধ্যে পায়ে হেঁটে আসেন। নিজাম গেটে মন্ত্রীকে স্বাগত জানান দরগাহ কমিটির প্রেসিডেন্ট আসরার আহমদ খান এবং আঞ্জুমানের পদাধিকারীরা। কেন্দ্রীয়মন্ত্রী মুখতার আব্বাস নাকভি বুলন্দ দরজা, মহফিল খানা, জান্নাতি দরজা হয়ে মাজার শরীফে পৌঁছান। এখানে মাজারের খাদিম আব্দুল বারি চিশতি নাকভিকে মাজার জিয়ারত করান এবং চাদর চড়ান। এ বছর খাজা মঈন উদ্দিন হাসান চিশতী (র.)-এঁর ৮০৪ তম উরস পালিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর দেয়া বার্তা পড়ে শোনান মুখতার আব্বাস নাকভি। [বিস্তারিত...]