হোম পেজ

আসামের ভাষা শহীদ দিবস পালিত হলো ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে

শেখ উল্লাস ॥ ১৯ মে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাসে আরেকটি গৌরবময় দিন। ১৯৬১ সালের এই দিনে ১১ জন ভাষা শহীদের রক্তের বিনিময়ে আসামের বিধান সভায় বাংলা ভাষা রাজ্যভাষা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়। আসামের ভাষা শহীদ দিবস উদযাপন উপলক্ষে গত ১৯ মে বৃহষ্পতিবার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক এ কথা বলেন। ভাষা আন্দোলন স্মৃতিরক্ষা পরিষদ আয়োজিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন ভাষা সৈনিক অধ্যাপক ডাঃ মীর্জা মাজহারুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভাষা আন্দোলন স্মৃতিরক্ষা পরিষদের সভাপতি ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস গবেষক এম আর মাহবুব। পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ডাঃ এম এ মুক্তাদীর ও সালমা আহমেদ হীরার সঞ্চালনায় আলোচনায় অংশ নেন ভাষা সৈনিক আবদুল করিম পাঠান, ভাষ সৈনিক আবদুল [বিস্তারিত...]

সময়ের সাফ কথা.... শক্তি অস্থায়ী সত্য চিরস্থায়ী

সত্যদর্শী ॥ রাজনৈতিক দলগুলো কি সত্য-কে ভয় পায়? এটা সচেতন ব্যক্তিদের চিন্তাজগতে ঘুরপাক খাচ্ছে। দলের পক্ষে যারা চিৎকার চেঁচামেচি করছে তাদের একজনও যদি বাস্তব অবস্থা অনুধাবন করতো তবে মাথা নিচু হয়ে যেত তাদের। যে প্রয়োজনের উপর দলগুলোর জন্ম ও বেড়ে উঠা তার ভিত্তিমূলে নিজেদেরই একটি অংশ বারবার আঘাত করেছে এবং করছে। সাধারণ মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা তথা ভাগ্য বদলে দেয়ার যে অঙ্গীকার দলগুলোর জন্মের প্রথম গঠনতন্ত্রে সন্নিবেশিত হয়েছিল বেমালুম তারা ভুলে আছেন। আওয়ামীলীগ তাদের দলীয় গঠনতন্ত্রে সাম্যতা ভিত্তিক অর্থনীতি ও সমাজ সৃষ্টিধর অঙ্গীকার করেছে। শ্রমিক মজুর কৃষক মেহনতী মানুষের দল আওয়ামলীগ বর্তমানে চরম বুর্জোয়া লুটেরাদের সংগঠনে পরিণত হতে যাচ্ছে। তারা শ্রমিক-মজুর-কৃষকদের করুণা করে দয়া-দাক্ষিণ্যের কর্মসূচী নেয় অথচ এই দলটির জন্মের ঋণ তারা ভুলে গেছে। প্রশ্ন আসে কাদের নীলনক্সা বাস্তবায়ন [বিস্তারিত...]

ভাবনার অতল গহ্বরে ক’জন ভাবে!

অ্যাডভোকেট এম.মাফতুন আহম্মেদ ॥ ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালবাসি’-। মূল গানের একটি লাইন মাত্র। কোন প্রেক্ষাপটে শত বছর আগে গানটি রচনা করেছিলেন আলোচ্য নিবন্ধে সেটা বড় কথা নয়। আলোচনার বিষয়ও নয়। বড় কথা কালজয়ী ‘সোনার বাংলা’এই গানটি আজ স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত। স্বাধীনতার মূল্যবোধকে বুকে ধারণ করে একরাশ শ্রদ্ধা জানিয়ে গেয়ে চলেছেন এ দেশের ১৬ কোটি মানুষ। কিন্তু এক রাশ প্রশ্ন থেকে যায়, সোনার দেশ এই বাংলাদেশকে ক’জন ছেলে চিন্তা করে সোনার ছেলে হওয়ার। ক’জন মানুষ বুকে ধারণ করে লালন করে সোনার মানুষ হওয়ার। ক’জনের মধ্যে জাতীয়তাবোধ আছে। দেশাত্ববোধ আছে। এ সব থাকলে এই দেশ আজ সোনার দেশ হওয়ার কথা। শান্তির নীড় হওয়ার কথা। স্বাধীনতার বয়স কম হলো না। মেঘে মেঘে কেটে গেল অনেক দিন। অনেক বছর। স্বাধীনতার [বিস্তারিত...]

ভিক্ষুকের দৌঁড়ঝাপ!

নজরুল ইশতিয়াক ॥ সময়ের সাথে সাথে কৌশল অপকৌশল সব পাল্টায়। চোর ছিনতাইকারী ফাইলজব্দকারী দখলদার পুলিশ প্রতিনিয়ত নতুন নতুন চিন্তন পদ্ধতি নিয়ে কাজ করে। আধিপত্যবাদী লুটেরাদের ব্যস্ততা লুটপাটের মহাকৌশল নিয়ে। স্থানীয় লুটেরাদের হাজারো অপকৌশল। অপকৌশল অতিকৌশলের খেলা চলতেই থাকে। এ খেলার আশু উদ্দেশ্য হলো পারসেপশন তৈরী করে স্বার্থসিদ্ধি। এ জন্য দরকার সভাসমিতি সেমিনার বক্তব্য বিবৃতিবাজী ইত্যাদি। যেমন হাল আমলে যারা চিৎকার করে বলছেন ভুমিকম্প হলে রাজধানী ঢাকার ৭৫ হাজার বিল্ডিং ধ্বসে পড়বে তাদের কাছে প্রশ্ন আপনারা কি একটি বিল্ডিংও পরীক্ষা নীরিক্ষা করে দেখেছেন? পরীক্ষা করে থাকলে কোন কোন এলাকার কোন কোন বিল্ডিং কোন কোন যন্ত্র দিয়ে পরীক্ষা নীরিক্ষা করেছেন সেসব গবেষণা তথ্য জাতির সামনে উপস্থাপন করুন। না করতে পারলে জনগণকে জানাবার জন্য বড় বড় কথা বলতে কোন কোন দাতা [বিস্তারিত...]

বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক পানিগুহা

বিশ্বের সর্ববৃহৎ প্রাকৃতিক পানিগুহা    সংলাপ ॥ ভৌগোলিক বৈশিষ্ট্যের কারণে ইরানে প্রাকৃতিক অনেক বৈচিত্র্য লক্ষ্য করা যায়। কোনো কোনোটি একেবারেই ব্যতিক্রম। ব্যতিক্রমধর্মী বলার কারণ হলো এ ধরনের নিদর্শন সমগ্র পৃথিবীতে বিরল। এই ব্যতিক্রমধর্মী প্রাকৃতিক নিদর্শনটি একটা গুহা। এর নাম হলো গারে আলীসার্দ বা আলীসার্দ গুহা। হামেদান শহর থেকে প্রায় ৭৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে একটি পাহাড়ের নীচে এই গুহাটি অবস্থিত। ওই এলাকার স্থানীয় লোকজন গুহাটির নাম দিয়েছে আলীসার্দ। গুহাটির ব্যতিক্রমধর্মী বৈশিষ্ট্য হলো এর ভেতরে অসংখ্য লেক বা নালা পরস্পর সংযুক্ত হয়ে আছে। লেকগুলো আঁকাবাঁকা। তবে লেকের পানি অসম্ভব স্বচ্ছ। পানির কোনো রং নেই, গন্ধও নেই। স্বচ্ছতার কারণে পাঁচ মিটার গভীর পর্যন্ত স্পষ্ট দেখতে পাওয়া যায়। পানির স্বাদ সাধারণ মিষ্টি পানির মতোই। এর মধ্যে যে পানি তার গভীরতা হলো আট মিটার বা সাড়ে ছাব্বিশ ফুট। গুহার [বিস্তারিত...]

ধর্মের নামে জঙ্গিবাদ!

সংলাপ ॥ সৌদি আরবের মুফতি ও ফতোয়া বোর্ডের স্থায়ী সদস্য শেখ সালেহ আল ফাউজান সারা বিশ্বে ওহাবি মতবাদ ছড়িয়ে দেয়ার আহবান জানিয়েছেন। তিনি রিয়াদে দার আল উলুম বিশ্ববিদ্যালয়ে দেয়া ভাষণে এ আহবান জানান। এ মুফতি আরো বলেছেন, সৌদি আরবসহ সারা বিশ্বে ওহাবি মতবাদ ছড়িয়ে দেয়া জরুরী। তিনি বলেন, ওহাবি সালাফি চিন্তাধারার সঙ্গে পরিচিত হওয়া, প্রশিক্ষণ ও তা সংরক্ষণ করা ওহাবি মতাদর্শের সমর্থক সবারই দায়িত্ব। বিশ্লেষকরা বলছেন, বর্তমানে মধ্যপ্রাচ্যসহ অন্যান্য স্থানে সন্ত্রাসবাদ বিস্তারের প্রধান উৎস হচ্ছে ওহাবি মতবাদ। তালেবান থেকে শুরু করে বর্তমানে আইএসআইএল বা দায়েশ নামে পরিচিত যত উগ্র ও সন্ত্রাসী গ্রুপ রয়েছে তাদের সবাই সৌদিপন্থি ওহাবি মতবাদের দ্বারা প্রভাবিত ও প্রশিক্ষিত। বিশ্লেষকদের মতে, ধর্মের নামে বিকৃত ওহাবি সালাফি মতবাদের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে সৌদি আরব হচ্ছে সন্ত্রাসবাদ গড়ে তোলা [বিস্তারিত...]

ক্ষমতা, প্রতিপত্তি, সম্পদ নিয়ে বিতর্কই তাড়া করছে

মমতাজ ॥ এক বছর আগেও গোটা দুনিয়ার মনে হয়েছিল, ডেমোক্র্যাটিক পার্টি থেকে তিনিই একমাত্র প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হওয়ার দাবিবার। কিন্তু লড়াইয়ে নেমে তিনি যে বারবার প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছেন, সেটা ছিল সকলের ধারণার অতীত, এমনকী তিনি নিজেও তা ভাবেননি। আইনজীবী, প্রাক্তন ফার্স্ট লেডি, নিউ ইয়র্কের সিনেটর, ওবামা প্রশাসনের এক সময়ের বিদেশ সচিব হিলারি ক্লিনটনের নামের পাশে তারকা চিহ্ন কম নেই। ক্ষমতা, প্রতিপত্তি, সম্পদে মার্কিন দেশের প্রথম এক শতাংশ নাগরিকদের মধ্যে পড়ে ক্লিনটন পরিবার। ফলে ‘আমি তোমাদেরই লোক’ প্রমাণ করা হিলারির পক্ষে যে বড় কঠিন কাজ তা টের পেয়েছেন ভোটের প্রচারেই। এর সঙ্গে আবার যোগ হয়েছে কিছু বিতর্ক। প্রশ্ন উঠেছে স্বামী বিল ক্লিনটনের বিপুল তহবিল নিয়েও। হিলারি এখন যে সমস্যার মুখোমুখি হচ্ছেন, সেগুলো সম্পর্কে ২০০৮ সালেই তার আভাস পাওয়া গিয়েছিল, [বিস্তারিত...]

লড়াইয়ের অঙ্গীকার করলেন পুতিন

লড়াইয়ের অঙ্গীকার করলেন পুতিন সংলাপ ॥  সিরিয়ার উপকূলীয় তারতুস এবং জাবলাহ শহরে ভয়াবহ বোমা হামলায় ১৪০ জনের বেশি বেসামরিক মানুষ নিহত হওয়ার পর রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের সরকারকে সমর্থনের অঙ্গীকার ব্যক্ত করেছেন। একইসঙ্গে তিনি উগ্র সন্ত্রাসী গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেন। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে পাঠানো এক শোক বার্তায় পুতিন বলেছেন, সর্বশেষ এ সন্ত্রাসী হামলার ভেতর দিয়ে বিদেশি মদদপুষ্ট সন্ত্রাসীদের বর্বর চরিত্র আরো একবার পরিষ্কার হলো। এসব সন্ত্রাসী সিরিয়ায় রক্তক্ষয়ী সহিংসতা চালিয়ে আসছে বলে পুতিন তার ওই শোক বার্তায় উল্লেখ করেছেন।  বার্তায় রুশ প্রেসিডেন্ট সিরিয়া সরকারের অংশীদার হিসেবে সন্ত্রাসীদের হুমকির বিরুদ্ধে কাজ করে যাওয়ার ইচ্ছা ব্যক্ত করেন। তিনি বলেছেন, সন্ত্রাসীরা সিরিয়ার বেসামরিক লোকজনের রক্তে নিজেদের হাত রঞ্জিত করার পর কোনোভাবেই শাস্তি এড়াতে পারবে না। সাধারণত শান্ত শহর হিসেবেই [বিস্তারিত...]

সবই যেন কানার হাট বাজার!

নজরুল ইশতিয়াক ॥ কোন্ বাস্তবতা - কোন্ অলংঘনীয় বিধান ও কোন্ সক্ষমতার জায়গা থেকে স্বাধীনতার চার দশক পরে এসে একাত্তরে মানবতা বিরোধী ঘাতকদের বিচার হচ্ছে। দায় মোচনের অনিবার্যতা কেন দেখা দেয় এবং ক্ষমতাধরেরাও শেষ পর্যন্ত কেন বিচারের মুখোমুখি হয়। এ সবই গভীর পর্যবেক্ষণের দাবি রাখে। ঘাতক খুনিরা যতই ডালপালা শেকড় বাকড় গেড়ে বসুক না কেন যতই কলা কৌশল অপকৌশল রপ্ত করুক না কেন প্রতিফল ভোগ করতেই হয়। পবিত্র কুরআন বিকৃত করে স্বরচিত মনগড়া ব্যাখ্যা দিয়ে আপন বাসনা থেকে জাতি বিনাশী মানবতা বিরোধী কোন অপকর্ম যারা করেন এবং করবেন তাদেরকে জীবদ্দশায় তার প্রতিফল ফিরিয়ে দেখানো হয়। মহান করুনাময় স্রষ্টার এই বিধান লংঘিত হয় না। প্রকৃতপক্ষে সব অপরাধের বিচার হয় এবং অপরাধীরা বিচারের মুখোমুখি হবেই। সব অপরাধীর সব ঘাতকদের [বিস্তারিত...]

সময়ের সাফ কথা.... বাঙালির বাংলা

সময়ের সাফ কথা....  বাঙালির বাংলা বাঙালি যেদিন ঐক্যবদ্ধ হয়ে বলতে পারবে - ‘বাঙালির বাংলা’সেদিন তারা অসাধ্য সাধন করবে। সেদিন একা বাঙালিই ভারতকে স্বাধীন করতে পারবে। বাঙালির মতো জ্ঞান-শক্তি ও প্রেম-শক্তি (ব্রেন সেন্টার ও হার্ট-সেন্টার) এশিয়ায় কেন, বুঝি পৃথিবীতে কোন জাতির নেই। কিন্তু কর্ম-শক্তি একেবারে নেই বলেই তাদের এই দিব্যশক্তি তমসাচ্ছন্ন হয়ে আছে। তাদের কর্ম-বিমুখতা, জড়ত্ব, মৃত্যুভয়, আলস্য, তন্দ্রা, নিদ্রা, ব্যবসা-বাণিজ্যে অনিচ্ছার কারণ। তারা তামসিকতায় আচ্ছন্ন হয়ে চেতনা শক্তিকে হারিয়ে ফেলেছে। এই তম, এই তিমির, এই জড়ত্বই অবিদ্যা। অবিদ্যা কেবল অন্ধকার পথে ভ্রান্তির পথে নিয়ে যায়; দিব্যশক্তিকে নিস্তেজ, মৃতপ্রায় করে রাখে। যারা যত সাত্বিক ভাবাপন্ন, এই অবিদ্যা তাদেরই তত বাধা দেয় বিঘ্ন আনে। এই জড়তা মানবকে মৃত্যুর পথে নিয়ে যায়। কিছুতেই অমৃতের পানে আনন্দের পথে যেতে দেয় না। এই তমকে শাসন করতে পারে [বিস্তারিত...]

ধর্ম নিয়ে রাজনীতি কোন পথে?

শেখ উল্লাস ॥ ‘ধর্ম’-এ শব্দটি খাঁটি বাংলা শব্দ। বাংলা একাডেমীর সহজ বাংলা অভিধানে এই ধর্ম শব্দটির অর্থ হিসেবে বলা হয়েছে, উপাসনা, জীবনাচরণের সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি ও বিশ্বাস, স্বভাব, প্রকৃতি, গুণ, বিশেষত্ব (মানবধর্ম, আগুনের ধর্ম), সৎ কাজ, পূণ্যের কাজ, ভালো আচরণ, কর্তব্য, বিধি ইত্যাদি। ধর্মকর্ম, পূণ্যকর্ম, ধর্মের কাজ। আবার ধর্মগুরু অর্থ ধর্ম সম্পর্কে যিনি উপদেশ দেন, ধর্মগ্রন্থ বা ধর্মপুস্তক অর্থ ধর্মের বই। ধর্মচর্চা অর্থ ধর্ম সম্পর্কে আলাপ-আলোচনা, ধর্মাচরণ, ধর্মানুশীলন। ধর্মচিন্তা অর্থ ধর্মের তত্ত্ববিষয়ক চিন্তা বা ধ্যান, অধ্যাত্মবিষয়ক চিন্তা। ধর্মত অর্থ ধর্মানুসারে, ধর্ম অনুযায়ী, ন্যায়ত। ধর্মদ্রোহী অর্থ ধর্মবিরোধী। ধর্মনিষ্ঠ বা ধর্মপরায়ণ অর্থ ধার্মিক, যিনি ধর্মের নিয়ম নীতি ইত্যাদি মেনে চলেন। ধর্মপ্রচারক অর্থ কোনো ধর্মবিষয়ক মতামত প্রচারকারী। ধর্মপ্রাণ অর্থ ধর্মে গভীরভাবে বিশ্বাসী, নিষ্ঠার সঙ্গে ধর্মপালনকারী, ধর্মভীরু অর্থ ধর্মকে ভয় ও শ্রদ্ধা [বিস্তারিত...]

ব্যাংকের লাভক্ষতি

মোঃ খলিলুর রহমান চৌধুরী ॥ আজকাল প্রায়ই বিভিন্ন ব্যাংকের লাভ-ক্ষতির অবস্থা পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করা হয় এবং বিভিন্নস্থানে রিপোর্টও করা হয়। প্রকৃতপক্ষে একটি ব্যাংকের লাভ বা ক্ষতি বলতে নীট লাভ বা ক্ষতিকেই বুঝায় এবং সকল সময়ে উক্ত নীট লাভ বা ক্ষতিকেই রিপোর্ট করা উচিৎ। উক্ত নীট লাভ বা ক্ষতি হলো মন্দ ঋণের বিপরীতে গড়া সঞ্চিতি উত্তর লাভ বা ক্ষতি। কিন্তু তা না করে অনেকেই সঞ্চিতি পূর্ব অপারেটিং লাভকে ঘোষনা করে থাকে যা খুবই বিভ্রান্তিকর। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে খেলাপি ও মন্দ ঋণের ব্যাপকতার মধ্যে মন্দ ও কু-ঋণের সঞ্চিতি একটি গুরুত্বপূর্ণ, তাৎপর্যপূর্ণ ও উল্লেখযোগ্য বিষয়। হিসাববিজ্ঞানের নিয়মনীতিতে মন্দ ও সন্দেহজনক ঋণের সঞ্চিতি সৃষ্টি করা বাধ্যতামূলক। তাই নীট লাভ বা নীট ক্ষতির কালে উক্ত মন্দ ঋণের সঞ্চিতি বাদ দিয়েই নীট [বিস্তারিত...]

এদেশের বুকে আঠারো আসুক নেমে

এদেশের বুকে আঠারো আসুক নেমে সংলাপ ॥ বাংলা সাহিত্যের একটি প্রিয়তম নাম সুকান্ত ভট্টাচার্য, বাঙালির ঘরে ঘরে নিঃসন্দেহে একটি প্রিয়তম গ্রন্থ হবে সুকান্ত-সমগ্র। মাত্র একুশ বছর বয়স পর্যন্ত কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য পৃথিবীতে বেঁচে ছিলেন। কবিরাতো আবির্ভাবের প্রায় সঙ্গে সঙ্গে বাংলা সাহিত্যে কবি সুকান্তকে আশ্চর্য প্রতিভা বলে স্বীকৃতি দিয়েছিলো। জীবনের অভিজ্ঞতাকে ক্ষমতায় বেধে সুকান্ত যখন কবিতার বিদ্যুৎশক্তিকে কলকারখানায়, খেতে-খামারে ঘরে ঘরে সবে পৌঁছে দিতে শুরু করেছেন ঠিক তখনই মৃত্যু তাকে কেড়ে নিয়ে গেলো। কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য কিশোরবাহিনী গঠন করেন এবং ছাত্র - নেতাদের এই কিশোর বাহিনীতে যুক্ত করেন। শুধু তাই না, সুকান্ত ভট্টাচার্য দেশের স্বাধীনতা প্রাপ্তির মধ্যেই তার স্বপ্নকে সীমাবদ্ধ রাখতে চাননি, তিনি তাঁর সংগ্রামকে বিস্তৃত করতে চেয়েছেন, ছাত্র-যুবদের মধ্যে তাঁর সাহিত্য-ভাবনার মধ্যে দিয়ে। সেই সময় কবি সুকান্ত ভট্টাচার্য তার কবিতায় বাংলার যুবসমাজকে উদ্বেল করে তোলেন। বন্ধু, [বিস্তারিত...]

সন্ত্রাসী মানেই কি ইসলাম ধর্মাবলম্বী?

সংলাপ ॥ সন্ত্রাসী মানেই কি ইসলাম ধর্মাবলম্বী? এই ভ্রান্ত ধারণা থেকে যেন বেরিয়ে আসতে পারছে না ইউরোপের পুলিস। গ্রেটার ম্যাঞ্চেস্টারের ট্র্যাফোর্ড সেন্টারে আত্মঘাতী বিস্ফোরণ মোকাবিলার মহড়া দিচ্ছিল ওই শহরের পুলিস। সেই মহড়া নিয়েই এখন তৈরি হয়েছে চরম বিতর্ক। গত সপ্তাহের মঙ্গলবার ভোরে ওই মহড়ায় আত্মঘাতী সন্ত্রাসী সাজানো হয়েছিল এক স্বেচ্ছাসেবককে। সন্ত্রাসবাদীদের মতো সাজপোশাক করানো হয়েছিল তাকে। গায়ে লাগানো ছিল নকল বোমা। হাতে ছিল বোমা ফাটানোর নকল রিমোট কন্ট্রোলারও। বোমা ফাটানোর অভিনয় করার আগে জোরে জোরে ইসলাম ধর্মের নামে জয়ধ্বনি দিতে শোনা যায় ওই স্বেচ্ছাসেবককে। তারপরে মাটিতে লুটিয়ে পড়ার অভিনয় করেন তিনি। মহড়ার এই অংশ নিয়েই তীব্র প্রতিবাদ দেখা দিয়েছে। প্রশ্ন উঠছে, কেন একজন সন্ত্রাসবাদীর পরিচয় ইসলাম ধর্মের মাধ্যমে করা হবে? জানা গেছে, ইসলাম ধর্মের নামে জয়ধ্বনি দেয়ার [বিস্তারিত...]

জঙ্গি দমনে নেমেছে ইরাকের মেয়েরাও

জঙ্গি দমনে নেমেছে ইরাকের মেয়েরাও সংলাপ ॥ ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর। উত্তর ইরাকের শিনজার শহরের দখল নিয়েছে আই এস জঙ্গিরা। শহরজুড়ে গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট। সেই সময়েই প্রতিবেশীর আট শিশুসন্তানকে হত্যার দৃশ্য দেখে চুপ করে থাকতে পারেননি ২১ বছরের আসিমা দাহির। জঙ্গিদের বিরুদ্ধে একাই রুখে দাঁড়ান তিনি। তরুণী আসিমার দাপটে কিছুক্ষণের জন্য হলেও পিছু হটে জঙ্গিরা। সেই আসিমাই তৈরি করেছেন নিজস্ব সেনাবাহিনী। তাঁর নেতৃত্বে লড়ছেন  ত্রিশ জনেরও বেশি তরুণী। প্রশিক্ষণ চলছে আরও পঞ্চাশ জনের। মূলত উত্তর ইরাক থেকে জঙ্গিদের হটাতে লড়ছেন আসিমা। পাহাড়, জঙ্গলে ঘুরে বেড়াতে হয় তাঁকে। আপাতত ডেরা মোসুল শহরের পাহাড়ি এলাকায়। সেখানে অস্থায়ী ঘাঁটিতে বসে আসিমা বলেছেন, ‘সন্ত্রাসবাদীরা কখনও লিঙ্গ বা বয়স দেখে কাউকে মারে না। ওরা শিশুদেরও ছাড়ে না। শিশুরা আমাদের দেশের ভবিষ্যৎ। ওদের বাঁচানোর জন্যই হাতে অস্ত্র তুলে নিয়েছি।’ [বিস্তারিত...]

সন্ত্রাস বিস্তার করছে সৌদি আরব!

সংলাপ ॥ জাতিসংঘে নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত আব্দুল্লাহ্ আল মোয়াল্লেমি দাবি করেছেন, মধ্যপ্রাচ্যসহ আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সন্ত্রাসবাদ বিরোধী যুদ্ধ এবং নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় রিয়াদ প্রস্তুত রয়েছে। তিনি নিরাপত্তা পরিষদে সন্ত্রাসবাদ ও এর নানা দিক নিয়ে অনুষ্ঠিত উন্মুক্ত আলোচনা সভায় দাবি করেছেন, পশ্চিম এশিয়ায় সন্ত্রাসবাদের উৎস হচ্ছে ইরান। যদিও তিনি ইরাক ও সিরিয়ায় তৎপর উগ্র তাকফিরি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশকে তাদের অর্থ ও অস্ত্র সরবরাহের বিষয়টি সম্পূর্ণ এড়িয়ে গেছেন। জাতিসংঘে সৌদি রাষ্ট্রদূত এমন সময় সত্য ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছেন যখন এটা সবারই জানা আছে যে, উগ্র ওহাবি ও সালাফি গোষ্ঠীর পৃষ্ঠপোষক হিসেবে সৌদি আরবই মধ্যপ্রাচ্যসহ সারা বিশ্বে সন্ত্রাসবাদের বিস্তার ঘটাচ্ছে। দায়েশ, আল কায়দা ও তালেবানসহ অন্যান্য সন্ত্রাসী গোষ্ঠীতে সৌদি আরবের ব্যাপক প্রভাব ও উপস্থিতি রয়েছে। যে কোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের ঘটনায় সৌদি [বিস্তারিত...]

দলের চেয়ারম্যান নিযুক্ত হলেন কিম

দলের চেয়ারম্যান নিযুক্ত হলেন কিম সংলাপ ॥ উত্তর কোরিয়ার ক্ষমতাসীন দলের পার্টি কংগ্রেসে নেতা কিম জং-উনের পরমাণু অস্ত্র বৃদ্ধির নীতিকে সরকারিভাবে স্বীকৃতি দেয়া হল। সেই সঙ্গেই দলের চেয়ারম্যানও নিযুক্ত হলেন উন। এই অবস্থায় সামরিক স্তরে আলোচনা ও পারস্পরিক সম্পর্কে উন্নতি আনার যে প্রস্তাব কিম দিয়েছিলেন, সোমবার দক্ষিণ কোরিয়ার তরফে তা খারিজ করে দেয়া হল। প্রায় ৪০ বছর পর গত শুক্রবার থেকে শুরু হয় এই পার্টি কংগ্রেস। কিমের রাজ্যাভিষেককে অনুমোদন দিতেই এই পার্টি কংগ্রেসের আয়োজন বলে মনে করা হচ্ছে। যাতে উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নেতা হিসাবে কিমের মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হয়। এই পার্টি কংগ্রেসকে উত্তর কোরিয়ার সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণকারী সংস্থা হিসাবে দেখা হয়। সেখানে গতকাল জড়ো হন কয়েক হাজার দলীয় প্রতিনিধি। সেখানে কিমের পেশ করা একটি রিপোর্ট গ্রহণ করা হয়। নয়া নীতিতে দেশের আর্থিক ক্ষমতার বদ্ধি [বিস্তারিত...]

এই সপ্তাহে….

 

* সূফী সাধক হযরত আবু আলী আক্তার উদ্দিন স্মরণে হলো মুক্ত আলোচনাঃ সত্যের সাথে একাত্মতা

* ছিটমহলের এপার – ওপার

* বোধোদয় : আনসারুল্লাহর সঙ্গে আলোচনা

* মূল্যবোধ ও যুক্তিবিচার – ৩

* চিরঞ্জীব সূফী সাধক আবু আলী আক্তার উদ্দিন

* জ্ঞান অর্জনে বই কিতাব হতে মানুষ কিতাব উত্তম

* মূল্যবোধ ও যুক্তিবিচার – ২

* সূফী সাধক খাজা মঈন উদ্দিন হাসান চিশতি স্মরণে রজব মাসব্যাপী শান্তি সমাবেশ হলো

* আইএসের তথ্য ফাঁস করেন রাশিয়ার মহিলা গুপ্তচর

* সিরিয়ার ভেতরে সামরিক অভিযান শুরু করেছে তুরস্ক